সেই ‘রান আউট’ বিতর্কে হেনস্থার শিকার অশ্বিন পত্নী ও কন্যা

0
35

দ্বাদশ আইপিএলে রাজস্থান রয়্যালসের বিরুদ্ধে কিংস ইলেভেন পঞ্জাব অধিনায়ক রবিচন্দ্রন অশ্বিনের করা ‘মাঁকড়ীয় ’ রান আউট বিতর্কের জের ক্রমশ বাড়ছে। সোশ্যাল সাইটে ভারতের এই তারকা ফিঙ্গার স্পিনারের সমালোচনা চলছেই। অশ্বিনের ক্রিকেটিং স্পিরিট নিয়ে প্রশ্ন তুলে যখন সরব হয়েছিলেন শেন ওয়ার্ন, কেভিন পিটারসনের মত সাবেক কিংবদন্তি ক্রিকেটাররা, তখন এই ইস্যুতে অশ্বিনের পাশে দাঁড়িয়েছেন সাঙ্গাকারার মত সাবেক কিংবদন্তি ক্রিকেটাররাও।

কিন্তু কেবল অশ্বিনকে আক্রমণ করেই শান্ত থাকল না নেটিজেনরা। রোষের আঁচ গিয়ে পড়ল রবিচন্দ্রন অশ্বিনের স্ত্রী পৃথী অশ্বিন এবং ছোট্ট কন্যাসন্তানের উপর। উল্লেখ্য, সোমবার পাঞ্জাবের ছুঁড়ে দেওয়া ১৮৫ রানের লক্ষ্যমাত্রার জবাবে রাজস্থান ইনিংসের তখন ১৩ তম ওভার। এক উইকেট হারিয়ে দলীয় ১০৮ রানে ব্যাট করছেন সঞ্জু স্যামসন। ননস্ট্রাইকে ৪৩ বলে ৬৯ রানে দাঁড়িয়ে থাকা বাটলার ক্রমশ ফ্যাক্টর হয়ে উঠছেন ম্যাচে। ঠিক সেসময় ডেলিভারি করতে উদ্যত অশ্বিন হঠাৎই থেমে যান এবং ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়া বাটলারকে রান আউট করে বসেন। ক্রিকেটীয় পরিভাষায় ‘মাঁকড়ীয়’ এই রান আউট একদমই ব্যাকরণ বহির্ভূত নয়। তাই তৃতীয় আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে মাঠ ছাড়তে হয় ক্ষুব্ধ ও হতাশ বাটলারকে। মাঠ ছাড়ার আগে অশ্বিনের সঙ্গে তর্কাতর্কিতেও জড়িয়ে পড়েন ইংলিশ ব্যাটসম্যান।

এরপর ম্যাচেও ক্রমশ হারিয়ে যেতে বসে রাজস্থান। নেটদুনিয়ায় শুরু হয় হইচই। চলতে থাকে অশ্বিনের মুন্ডপাত। রাজস্থান কোচ প্যাডি আপটন বলেন, ‘অশ্বিন যেটা করেছে, সেটা ওর ভাবমূর্তির পরিচায়ক। ওর সতীর্থদের চোখের দিকে তাকিয়ে মনে হয়নি তারা সবাই সমর্থন করে বিষয়টিকে। সবাই দেখেছে ঘটনাটা। আমরা আইপিএলের অনুরাগীদের উপর ছেড়ে দিচ্ছি যে, তারা এমন ঘটনা দেখতে চায় কি না। ক্রিকেটবিশ্ব বিচার করবে অশ্বিনের এমন আচরণ কতটা যুক্তিযুক্ত।’

তবে আইপিএল চেয়ারম্যান রাজীব শুক্লা টুইট করে জানান যে, একদা তার সভাপতিত্বে কলকাতায় ক্যাপ্টেন ও ম্যাচ রেফারিদের বৈঠকে, যেখানে ধোনি ও কোহলি উপস্থিত ছিলেন, সেখানে ঠিক হয় যে এমনভাবে মানকাডেড করা যাবে না নন-স্ট্রাইকার প্রান্তের ব্যাটসম্যানকে। অর্থাৎ ক্রিকেটীয় নিয়মানুসারে অশ্বিন কোনও ভুল না করলেও তার বিরুদ্ধে জেন্টলম্যান’স গেমসের স্পিরিট নিয়ে উঠে যায় প্রশ্ন।

রিপ্লে করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here