নির্বাচনে সহজ জয়ের আশা মোদির

0
41

ভারতের আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে ক্ষমতাসীন জোট আগের বারের চেয়ে বেশি আসনে জয়ী হয়ে সরকার গঠন করবে বলে আশা করছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। নির্বাচনের দুই সপ্তাহেরও কম সময় বাকি থাকতে গতকাল শুক্রবার রিপালিক ভারত টেলিভিশন চ্যানেলকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে নিজ জোটের সহজ জয়ের এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। মোদি বলেন, ‘ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) এবং ন্যাশনাল ডেমোক্র্যাটিক অ্যালায়েন্সের বাকি অংশীদাররা আগের তুলনায় বেশি আসনে জয়ী হবে’। ভোট গ্রহণের মাধ্যমে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় সরকার গঠন করা বিশ্বের সবচেয়ে বড় দেশ ভারতে মোট ভোটার সংখ্যা প্রায় ৯০ কোটি।

ওই ভোটররা মোট সাত দফায় ভোট দিয়ে আগামী পাঁচ বছরের জন্য তাদের প্রতিনিধি নির্বাচন করবেন। আগামী ১১ এপ্রিল প্রথম দফা ভোট গ্রহণ; তারপর ১৮ এপ্রিল, ২৩ এপ্রিল, ২৯ এপ্রিল, ৬ মে, ১২ মে এবং সর্বশেষে ১৯ মে ভোট হবে। আগামী ২৩ মে ভোটের ফলাফল ঘোষণা করার কথা রয়েছে। ২০১৪ সালে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বেই বিজেপি জোট ২৮২টি আসনে জিতে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছিল; প্রায় ৩০ বছরের মধ্যে কোনো দলের জন্য যা প্রথম ছিল।

মোদির দলকে হারাতে এবার ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসসহ কয়েকটি দল জোট বেঁধেছে। বিজেপি নেতাদের দুর্নীতি, কৃষিপণ্যের মূল্যের অস্বাভাবিক নিম্নগতি, বেকারত্বের হার বৃদ্ধি, প্রতিবেশী পাকিস্তানের সাথে সম্পর্কে উত্তেজনাসহ নানা কারণে জনগণের কাছে মোদির জনপ্রিয়তা কমছে বলে বিভিন্ন সময় খবর বেরিয়েছে। এ বছরের শুরুতেও বিভিন্ন জনমত জরিপে জাতীয় নির্বাচনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস পাওয়া গিয়েছিল; কিন্তু গত কয়েক সপ্তাহ ধরে জনমত জরিপের পাল্লা মোদির দিকেই ভারী। মোদির বিপক্ষে দাঁড় করানোর মতো সুনির্দিষ্ট প্রার্থীও বিরোধীদের হাতে নেই।

এ বিষয়ে কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীকে ইঙ্গিত করে মোদি বলেন, ‘হয়তো ২০২৪ সালে ‘মোদির বিপক্ষে কে’ এই প্রশ্ন উঠতে পারে। ২০১৯ সালের জন্য জনগণ তাদের সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছে এবং তারা আর কাউকে খুঁজছে না।’ সম্প্রতি ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরের পুলওয়ামায় ৪৪ জওয়ান নিহত হওয়াকে কেন্দ্র করে দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে যুদ্ধের দামামা বেজে উঠেছিল। বিরোধী দলের অভিযোগ, মোদি রাজনৈতিক ফয়দা লুটতে নিরাপত্তাবাহিনীকে ব্যবহার করছেন। সাক্ষাৎকারে পাকিস্তান প্রসঙ্গে মোদি বলেন, যতক্ষণ পর্যন্ত পাকিস্তান ‘সন্ত্রাসবাদীদের’ বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ না করবে ততক্ষণ পর্যন্ত তিনি ইসলামাবাদের সাথে কোনো ধরনের আলোচনা করবেন না।

রিপ্লে করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here