যাদের স্বপ্ন পুড়ে ছাই

0
28

মাত্র বছর দুয়েক আগে পুড়েছে ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান। সেই ধকল কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই আবারো আগুন কেড়ে নিয়েছে তাদের স্বপ্ন।
গতবারের আগুনে পোড়ার গন্ধ যেতে না যেতেই আবারো সর্বনাশ। এখন শুধুই হাহাকার।
দুই বছরের ব্যবধানে সর্বস্ব খুইয়ে এখন সর্বহারা গুলশান ডিএনসিসি মার্কেটের ব্যবসায়ী হাবিবুর রহমান। হাবিবের ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান উপহার ক্রোকারিজের তিনটি দোকানই পুড়ে ছাই। দোকানে প্রায় ৮০ লাখ টাকার মালামাল ছিল। দেশের নামিদামি তারকাচিহ্নিত হোটেলে পণ্য সরবরাহ করতেন হাবিব। বিদেশী পণ্যই বেশি ছিল তার দোকানে। ২০১৭ সালের আগুনে হাবিবের চারটি দোকানের সাড়ে তিন কোটি টাকার পণ্য পুড়ে গিয়েছিল। ব্যাংক ঋণ নিয়ে ফের দাঁড় করান ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। আবার উঠে দাঁড়াবেন সেই অবস্থা আর নেই।
নিজের পোড়া দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে নির্বাক হয়ে দেখছিলেন পুড়ে যাওয়া পণ্যের ভস্ম। হাবিব বলেন, ‘এবার একেবারে পথে বসে গেলাম। দুই বছরের ব্যবধানে সবই হারালাম। গতবারের আগুনে প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকার পণ্য পুড়েছিল। এবার ৮০ লাখ টাকার পণ্য পুড়ে গেল। কী নিয়ে কোথায় দাঁড়াব।’ হাবিব বলেন, ‘গতবার পুড়ে যাওয়ার পর ৫০ হাজার টাকা করে দিয়ে মার্কেট দাঁড় করিয়ে ছিলাম। ক্ষতিপূরণ দেয়ার কথা থাকলেও সরকার কোনো সহায়তা করেনি। হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হয়ে গেল নিমিষেই। শত শত ব্যবসায়ী আমার মতো আজ নিঃস্ব।’
মার্কেটের সামনে দাঁড়িয়ে আহাজারি করছিলেন ব্যবসায়ী জহিরুল ইসলাম। ২০১৭ সালের আগুনে তার ৫টা দোকান পুড়ে কয়লা হয়। আর এবার ৭টা দোকান পুড়ে ছাই হলো। জহিরুল বলেন, আমার জীবনের সব সম্বল শেষ হয়ে গেল। গতবার দোকান পোড়ার পর মানুষের কাছ থেকে ঋণ নিয়ে ব্যবসা করি। এবার তিন ভাইয়ের ৭টা দোকান পুড়ে গেল। কাঁচাবাজার, সুপার মার্কেট ও গুলশান শপিং সেন্টারে আমাদের ৭টি দোকান।
জহিরুল বলেন, ফায়ার সার্ভিস যখন এলো তখন আগুন মাত্র সুপার মার্কেটে লেগেছে। তারা চেষ্টা করলেও পানি ছিল না। এরপর গুলশান শপিং সেন্টারে আগুন লাগল। তিনতলা পুড়ে গেল। আমার তো সব শেষ। ক্ষতির পরিমাণ কেমন জানতে চাইলে বলেন, কোটি টাকার বেশি। ক্রোকারিজের দোকান। মালের শেষ নেই। ফায়ার সার্ভিস আর একটু আগে এলে আমি নিঃস্ব হতাম না।
দোকান মালিক লিটন জানান, প্রায় কোটি টাকার মালামাল ছিল তার। এই মার্কেটে তার ছিল ৮টি দোকান। সব ছিল মুদি দোকান। ছিল বেবি ফুড, তেল, চাল, ডাল, মসলা ইত্যাদি। তিনি বলেন, তার প্রায় কোটি টাকার মালামাল ক্ষতি হয়েছে। বলেন, নিঃস্ব, ফকির হয়ে গেলাম। আর মাথা তুলে দাঁড়াতে পারব না। ব্যাংকে লোন আছে আমার।
প্লাস্টিকসামগ্রী ও কাপড়ের দোকান ছিল আমেনা বেগমের। তিনি গতকাল আড়াই লাখ টাকার পণ্য এনেছেন। সব পুড়ে ছাই। গতকাল ভোর রাতেই ৬০ হাজার টাকার মাছ এনেছেন সজীব মিয়া। ৪০ হাজার টাকাই ধার। মাছের সাথে জ্বলে গেছে সজীব মিয়ার স্বপ্নও। শুধু সজীব মিয়া, আমেনা বেগম, লিটন নন এ রকম অন্তত ২০০ ব্যবসায়ী এখন দিশেহারা।

রিপ্লে করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here