হঠাৎ বিধ্বংসী রূপে ওয়ার্নার, ঘৃণা আর বিদ্বেষ চাপা দেয়ার প্রয়াস!

0
54

বল বিকৃতি কেলেংকারীর হোতা তিনি। অস্ট্রেলিয়া দলের দুই সতীর্থ স্টিভ স্মিথ ও ক্যামেরন ব্র্যানক্রফট একই অপরাধে জড়িত থাকলেও তদন্তে তাকেই মূলচক্রী হিসেবে চিহ্নিত করেছিল ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। সেই অপরাধের জেরে বিশ্বজোড়া ঘৃণা আর ধিক্কার ধ্বনিতে ঢাকা পড়ে গিয়েছিলেন ডেভিড ওয়ার্নার। ঘোর অন্ধকারে তলিয়ে গিয়েছিল তার ক্রিকেট ভবিষ্যৎ। গত বছর মার্চে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে বল বিকৃতি ঘটানোর অপরাধে অস্ট্রেলিয়ার তৎকালীন অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ ও সিনিয় তারকা ডেভিড ওয়ার্নারকে এক বছরের জন্য নির্বাসিত করে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। আরেক সদস্য ক্যামেরন ব্র্যানক্রফট নির্বাসিত হন ৯ মাসের জন্য। ফলে গত আইপিএলেও পর্যন্ত খেলতে পারেননি তারা।

রোববারই সরকারী ভাবে সব ধরণের ক্রিকেট থেকে নির্বাসনমুক্তি ঘটল তাদের। কাকতালীয় ঠিক সেই দিনটাকেই ওয়ার্নার বেছে নিলেন হারানো সম্মান উদ্ধারের ভিত প্রতিষ্ঠার জন্য। খলনায়ক তকমা ঝেড়ে নায়কের মঞ্চে ফেরার সেই অভিযানে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর বিরুদ্ধে ব্যাট হাতে শতরানের আলো ছড়ালেন বাঁহাতি এই অজি তারকা। আইপিএল কেরিয়ারে এটি তার চতুর্থ সেঞ্চুরি।

যেন গত এক বছরের রান ক্ষুধা একসঙ্গেই মিটিয়ে নেয়ার সংকল্প নিয়ে আইপিএল মঞ্চে ফিরেছেন ডেভিড ওয়ার্নার। অস্ট্রেলিয়ান ওপেনারটি প্রতি ম্যাচে যেভাবে ব্যাটিং করে যাচ্ছেন, তাতে সব রেকর্ড ভেঙেচুরে যেন চুরমার করে দেবেন তিনি। দ্বাদশ আইপিএলে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ইডেনে কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে ৫৩ বলে করেছিলেন ৮৫ রান। পরের ম্যাচে রাজস্থান রয়্যালসের ১৯৮ রানের জবাব দিতে নেমে ৩৭ বলে করেন ৬৯ রান। আর রোববার বিরাট কোহলির রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুর বিপক্ষে আগের দুই ইনিংসকে ছাড়িয়ে গেলেন ওয়ার্নার। করলেন দুর্দান্ত সেঞ্চুরি। ওপেন করতে নেমে ৫৫ বলে অপরাজিত ১০০ রানের ধ্রুপদী ইনিংস খেলেন তিনি। মারেন ৫টি বাউন্ডারি ও ৫টি ছক্কা।

আইপিএলের ইতিহাসে ওয়ার্নারের এটা চতুর্থ সেঞ্চুরি। এর আগে ২০১০ সালে দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের হয়ে কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে খেলেছিলেন অপরাজিত ১০৭ রানের ইনিংস। ২০১২ সালে সেই দিল্লির হয়েই ডেকান চার্জাসের বিপক্ষে খেলেছিলেন অপরাজিত ১০৯ রানের ইনিংস। ২০১৭ সালে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে নিজেদের মাঠেই কলকাতা নাইটরাইডার্সের বিপক্ষে করেছিলেন ১২৬ রান। যদিও ওই ম্যাচে আউট হয়ে গিয়েছিলেন তিনি।

শুধু শতরানই নয়, এদিন সঙ্গী ওপেনার জনি বেয়ারস্টোর সঙ্গে আইপিএলের ইতিহাসে ওপেনিং জুটিতে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডও গড়লেন ওয়ার্নার। ১১৪ রানের ইনিংস খেলে বেয়ারস্টো যখন আউট হন, তখন হায়দরাবাদের রান ১৮৫। আইপিএলের ইতিহাসে এর আগে ওপেনিং জুটিতে সর্বাধিক রানের রেকর্ড ছিল ১৮৪। ২০১৭ সালে গুজরাত লায়ন্সের বিপক্ষে কেকেআরের দুই ওপেনার গৌতম গম্ভীর ও ক্রিস লিন মিলে ওই জুটি গড়ে তুলেছিলেন। এক রান বেশি করে রোববার তা ভেঙে দিলেন ওয়ার্নার ও বেয়ারস্টো।

রিপ্লে করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here