ছাত্রদলের সংকট সমাধানে শনিবার পর্যন্ত সময় চায় স্থায়ী কমিটি!

0
37
ছাত্রদলের সংকট সমাধানে শনিবার পর্যন্ত সময় চায় স্থায়ী কমিটি

সচেতন বার্তা, ২৮ জুন: নতুন কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে ছাত্রদলের বিলুপ্ত কমিটির ক্ষুব্ধ নেতাদের কাছ থেকে আগামীকাল শনিবার পর্যন্ত সময় চেয়ে নিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির নেতারা। বৃহস্পতিবার রাতে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক বৈঠকে শনিবার পর্যন্ত সময় চেয়ে নেন দলটির নেতারা।

বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও নজরুল ইসলাম খান ক্ষুব্ধ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন। রাত ৮টা থেকে ১১টা পর্যন্ত চলে এই বৈঠক।

জবাবে ক্ষুব্ধ নেতারা বলছেন, সে ক্ষেত্রে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থীদের জন্য ফরম বিতরণ ওই দিন পর্যন্ত বন্ধ রাখতে হবে। এ অবস্থায় বিশ্বাসযোগ্য কোনো আশ্বাস না পেয়ে ক্ষুব্ধ নেতারা আজ নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ফের অবস্থান কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছেন।

এর আগে কমিটি বিলুপ্ত করে নতুন কমিটি গঠনে এসএসসি পাস ২০০০ সালের মধ্যে বয়সসীমা বেধে দেওয়ায় ছাত্রদলের সৃষ্ট সংকট সমাধানে বিএনপির নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটিকে দায়িত্ব দেন দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

দায়িত্ব পাওয়ায় দলের দুই নেতা মির্জা আব্বাস ও গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ছাত্রদলের ক্ষুব্ধ নেতাদের সঙ্গে নানা মাধ্যমে কথা বলেছেন। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টায় ছাত্রদলের ক্ষুব্ধ নেতাদের নিয়ে বৈঠক করেছেন।

তবে বৈঠকে কোনো সমাধান আসেনি জানিয়ে ইখতিয়ার রহমান কবির বলেন, ‘বৈঠকে কোনো সমাধান আসেনি। আবারও শুক্রবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় যাব।’

এদিকে গতকাল ছাত্রদলের কাউন্সিলের জন্য ঘোষিত তফসিল বাতিলের দাবিতে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় অবরুদ্ধ করে রাখায় সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদের ফরম বিরতণ শুরু করতে পারেনি এ সংক্রান্ত নির্বাচন কমিশন।

দুপুর ১টার দিকে কাকরাইলের স্কাউট ভবনের দিক থেকে বিক্ষুব্ধরা লাঠি ও ক্রিকেটের স্ট্যাম্পসহ মিছিল নিয়ে পল্টনের কার্যালয়ের প্রধান ফটকে অবস্থান নেন। তারা কার্যালয়ের একটি ক্লোজ সার্কিট (সিসি) ক্যামেরা ভেঙে ফেলেন এবং ভবনের বিদ্যুতের মেইন সুইচ বন্ধ করে দেন। ভবনের নিচ থেকে ভবনের তৃতীয় তলা লক্ষ্য করে কয়েক দফা ডিম ছুড়তেও দেখা গেছে বিক্ষুব্ধদের।
বিলুপ্ত কমিটির সাবেক যুগ্ম সহসাধারণ সম্পাদক সদ্য বহিষ্কৃত নেতা দবির উদ্দিন তুষার সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমাদের জীবন-যৌবন এই সংগঠনের মধ্যে চলে গেছে। আজকে একটি সিন্ডিকেট এই সংগঠনকে ভেঙে দিতে চায়। আমাদের দাবি বয়সসীমা তুলে দিতে হবে। যে তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে, তা এখনই বাতিল করতে হবে। ছাত্রদলের যে ১২ জন নেতাকে বহিষ্কার করা হয়েছে তাদের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করতে হবে।’

রিপ্লে করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here