বাগেরহাটের মাদ্রাসাছাত্রী হত্যার কারন “প্রতিশোধ”

0
173
হত্যার অভিযোগে শিশুসহ এক পরিবারের তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

প্রতিশোধ নিতে প্রতিবেশীরা মাদ্রাসাছাত্রী মেয়েটিকে হত্যা করেছে, পুলিশ এমনটাই জানিয়েছে গনমাধ্যমের কর্মীদের।

পুর্ব শত্রুতার জেরে প্রতিশোধের জন্যই ঘটানো এই হত্যার ঘটনায় পুলিশ রোববার বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ ও মোংলা থেকে এই তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে।

গ্রেপ্তারদের দুজন হলেন মোরেলগঞ্জের পশ্চিম বহরবুনিয়া গ্রামের মোক্তার মৃধা (৭৫) ও তার স্ত্রী মনোয়ারা বেগম (৬৫)। আরেকজনের নাম জানা যায়নি।রোববার সন্ধ্যায় আদালতে হাজির করার পর তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেওয়া হয়েছে।

গত ২রা জুলাই বিকালে পশ্চিম বহরবুনিয়া গ্রামের এক দিনমজুরের মেয়ে এবং স্থানীয় ছাপড়াখালী গাজীরঘাট দাখিল মাদ্রাসার ষষ্ঠ শ্রেণির এই ছাত্রীকে (১২) হত্যা করে বিবস্ত্র লাশ ঝুলিয়ে রাখা হয়। ঘটনার পরদিন নিহত শিশুর মা বাদী হয়ে মোরেলগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছিলেন।

রোববার বিকালে বাগেরহাটের পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায় নিজ কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিং করেন। প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার জানান, গত ২রা জুলাই বিকালে বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে প্রতিবেশী মোক্তার মৃধা, তার স্ত্রী মনোয়ারা এবং তাদের আরেক স্বজন এই মাদ্রাসাছাত্রীর বাড়ি আসেন। এরপর তারা মেয়েটিকে শ্বাসরোধে হত্যা করে এবং তার পরনের জামাকাপড় খুলে বিবস্ত্র করে তার সারা শরীরে লিপস্টিক লাগিয়ে ঘরের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখে।

এসপি পঙ্কজ দৈনিক সচেতন বার্তাকে বলেন, পুলিশ তদন্তে নেমে জানতে পারে এই ঘটনার চারদিন আগে প্রতিবেশী মোক্তার এই মাদ্রাসা ছাত্রীর মাকে একা পেয়ে জাপটে ধরেন। তখন ওই নারী মোক্তারের স্ত্রী মনোয়ারার কাছে এর নালিশ দেন।

ওই দম্পতি মেয়েটির মায়ের উপর প্রতিশোধ নিতে পরিকিল্পিতভাবে তার মেয়েকে হত্যা করে বলে পুলিশের কাছে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬১ ধারার স্বীকার করেছে বলেও জানান পুলিশের এই পুলিশ কর্মকর্তা।

 

রিপ্লে করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here